পাবলিক প্লেসে অসামাজিক কার্যক্রম রোধে মোবাইল কোর্ট

Client Logo
  • গল্প লিখেছেনঃ  কামরুন নাহার
  • তারিখঃ 2017-04-20
  • ভিজিটঃ 265
 
বরিশাল সমস্যা এবং সম্ভাবনা শীর্ষক ফেইসবুক গ্রুপের পোস্ট থেকে জানতে পারা যায় যে,স্কুল ও কলেজগামী ছাত্র-ছাত্রীরা স্কুল কলেজ ফাঁঁকি দিয়ে বিভিন্ন পার্কে, হোটেল, রেস্টুরেন্টে, নদীর তীরবর্তী ওয়াক ওয়েতে আসামাজিক কার্যক্রমে লিপ্ত থেকে সমাজে বিরুপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করছে। এই পোস্টের প্রেক্ষিতে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক নির্দেশিত হয়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করি। কির্তনখোলা নদীর তীরবর্তী পার্কে দুপুরের দিকে নির্জন স্থানে এরকম কয়েকটি জুটিকে পাওয়া যায়। এরই মধ্যে একটি জুটি ছিল ক্লাস নাইন পড়ুয়া। বাসা থেকে বলে এসেছে স্কুলে যাচ্ছে বলে কিন্তু স্কুলে না গিয়ে ইউনিফর্ম বদল করে পার্কে এসেছে। প্রথমে এই জুটি মোবাইল কোর্টকে বিভ্রান্তকরার চেষ্টা করে মিথ্যা তথ্য দিয়ে যদিও পরবর্তীতে জুটি তাদের অভিভাবকের ফোন নম্বর দেয় এবং তাঁদের ব্যাগ খুঁজে স্কুলের ইউনিফর্ম পাওয়া যায়। ছলে- মেয়ে দুটির মা- বাবার সাথে কথা বলে জানা যায় যে তাঁরা বাসা থেকে স্কুলের কথা বলে এসেছে। আমি বাচ্চাদুটি সাথে কথা বলি এবং তাঁদের অভিভাবকের সাথেও। তাঁদেরকে তাঁদের অন্যায় কাজটি বুঝিয়ে বলি এবং জীবন গড়বার পরামর্শ দেই। অভিভাবককে ধৈর্য ধারণ করতে বলি এবং ছলে-মেয়েদের প্রতি লক্ষ্য রাখার জন্য অনুরোধ করি।এই ক্ষেত্রে কোন মামলা না করে ছেলে-মেয়েকে তাঁদের অভিভাবকের উপস্থিতিতে বাসায় যাওয়ার পরামর্শ প্রদান করি।

 প্রিন্ট